রোজিনা ইসলাম | অক্টোবর ১৩, ২০১৫

5788f2c12e53adb9e7eef4e285b55f15-Japanese--2-রংপুরে দুর্বৃত্তদের গুলিতে নিহত জাপানি নাগরিক কুনিও হোশিকে বাংলাদেশে দাফন করার ব্যাপারে জাপান সরকারের কোনো আপত্তি নেই। কুনিও হোশির স্বজনদের পক্ষ থেকেও তাঁর লাশ নেওয়ার ব্যাপারে আগ্রহ প্রকাশ করা হয়নি। তাই রংপুরেই নগরের মুন্সিপাড়া কবরস্থানে কুনিও হোশির জানাজা ও দাফন অনুষ্ঠিত হতে পারে। এ ব্যাপারে রংপুরের স্থানীয় প্রশাসনকে জাপান দূতাবাসের সঙ্গে কথা বলে দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশ দিয়েছে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। দু-এক দিনের মধ্যে তাঁকে দাফন করা হতে পারে। গত ৩ অক্টোবর নগরীর উপকণ্ঠে দুর্বৃত্তদের গুলিতে নিহত কুনিও হোশির লাশ রংপুর মেডিকেল কলেজের হিমঘরে আছে।
গতকাল সোমবার স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে এ-সংক্রান্ত চিঠি রংপুরের বিভাগীয় কমিশনারকে পাঠানো হয়েছে। এদিকে কুনিও হোশি মুসলমান হয়েছিলেন বলে নিশ্চিত হয়েছে জাপান ও বাংলাদেশ সরকার। তাই তাঁকে মুসলিম রীতিতে দাফন করতে জাপান দূতাবাস আগ্রহ প্রকাশ করেছে।
স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান বিষয়টি নিশ্চিত করে প্রথম আলোকে বলেন, ‘কুনিও হোশিকে বাংলাদেশে দাফন করার বিষয়ে জাপান সরকার আপত্তি নেই বলে জানিয়েছে। এ পরিপ্রেক্ষিতে আমরা স্থানীয় প্রশাসনকে রংপুরে দাফন করার ব্যাপারে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে নির্দেশ দিয়েছি।’
এদিকে গতকাল পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের রাষ্ট্রাচার উপপ্রধান রংপুরের বিভাগীয় কমিশনারের কাছে কুনিও হোশির মৃত্যুসনদ, পোস্টমর্টেম প্রতিবেদন এবং পাসপোর্ট ও ব্যক্তিগত ব্যবহারের সামগ্রী ফেরত চেয়েছেন। ঢাকার জাপান দূতাবাসের কাছে এসব ফেরত পাঠাতে বলা হয়েছে।
রংপুর থেকে নিজস্ব প্রতিবেদক জানান, কুনিও হোশি মুসলিম হওয়ার স্বপক্ষে প্রমাণ পেয়েছেন রংপুর সিটি করপোরেশনের মেয়র শরফুদ্দিন আহমেদ ঝন্টু। তাঁর মুসলমান হওয়ার স্বপক্ষে অঙ্গীকারনামা জমা দেন স্থানীয় একটি মসজিদের মুয়াজ্জিন তাজুল ইসলাম।
রংপুর পুলিশ জানায়, এই মামলায় এখন পর্যন্ত দুজনকে গ্রেপ্তার দেখানো হয়েছে। এই দুজনের মধ্যে কুনিওর ব্যবসায়িক সহযোগী হুমায়ুন কবির ওরফে হিরা পুলিশের হেফাজতে এখনো রিমান্ডে আছেন। গত ৫ অক্টোবর সন্ধ্যায় তাঁকে আদালতের মাধ্যমে ১০ দিনের রিমান্ডে নেওয়া হয়। অন্যজন মহানগর বিএনপির সদস্য রাশেদ-উন-নবী খান ওরফে বিপ্লবকেও একই দিন ১০ দিনের রিমান্ডে নেওয়া হলেও গত শনিবার তাঁকে কারাগারে পাঠানো হয়।